বিয়ের আগেই প্রেম.. এক্সট্রা রোমান্টিক গল্প..

ভালবাসার গল্প
Imran Khan || 22 June, 2018 ! 8: 07 am

বিয়ের আগেই প্রেম..
এক্সট্রা রোমান্টিক গল্প.
Writer: Rafi
– আমাকে এখনি কোলে করে ছাদে নিয়ে যেতে হবে।(নিলিমা)
– কি বলো এইসব ছি ছি বিয়ের আগেই আমি পারবোনা।(আমি)
– তুমি পারবা না তোমার বাপ পারবো।(নিলিমা)
– আচ্ছা তাহলে এক কাজ করি আমি বাসায় গিয়া আমার আব্বুকে পাঠিয়ে দিতাছি।(আমি)
এই কথা বলা মাত্রই আমার মুখে আর বুকে অজস্র কিল আর ঘুসির প্রতিফলন ঘটলো।
অগত্যা কি আর করার কোলে তুলে নিলাম পাগলিটাকে।
কি ভাড়ি রে বাবা পুরাই আটার বস্তা।
– এই ওজন কিছুটা কমাবা আমি আটার বস্তা বিয়ে করে বাসায় নিতে পারবোনা।(আমি)
যদিও ও মোটা না চিকন তবুও রাগানোর জন্য বললাম।
– কি বললা আমি আটার বস্তা দাড়াও দেখাচ্ছি।(নিলিমা)
হায় হায় মেয়ে কি করে এগুলা।
ও আমার কাছে আসতাছে আরো কাছে আরো কাছে
তারপর তারপর তারপর একটা ঠাসস করে চড় মারলো।
তারপর চলে গেলো।
আপনারা কি ভাবছিলেন আপনারা তো ভাড়ি লুইচ্চা।



দাড়ান পরিচয়টা দিয়ে নেই,
আমি এম এ রাফি।ইন্টার 3rd year এ পড়ি। বুঝলেন না মানে HSC দিয়েছি…।
আর ওইটা আমার হবু বউ। এই বয়সেই আব্বু তার বন্ধুর মেয়ের সাথে বিয়ে ঠিক করে রাখছে।
এখন আমরা ধুমায়া প্রেম করতাছি যার কারনে দুদিন পর পর ই শ্বশুরবাড়ি যেতে হয়।
আজকেও আসছি।
মেয়েটা খুবি পাগল টাইপের তবে দেখতে অনেক সুন্দর। যতটা সুন্দর হলে আশেপাশের কোনো মেয়ের দিকে তাকালেই আমার অবস্থা টাইট।
আজকে উনার ইচ্ছা হইছে আমার সাথে চাদ দেখবে ।
এতে আমার কোনো অসুবিধা নাই কিন্তু উনার কথা হলো উনাকে কোলে করে নিয়ে যেতে হবে।
,
বিছানার ওপাশে রাগ করে বসে আছে উনি।
এখন আমাকে কি করতে হবে জানেন।
দুইটা না একটা আইসক্রিম আনতে হবে তারপর তার
রাগ ভাঙাতে হবে।
আমি দৌড়ে গিয়ে হেটে আইসক্রিম নিয়ে আসলাম তারপর লুকিয়ে ছাদের এক কোনে রেখে আসলাম।
,
কিছুক্ষন পর গেলাম মহারানির কাছে,
– আমার জানটা কি রাগ করছে?(আমি)
– না। আমি কারো জান না।(নিলিমা)
– দেখি কোথায় রাগ করছে আমার বাবুটা।(আমি)
– কোথাও না তুমি যাও এই আটার বস্তা তোমাকে তুলতে হবে না।(নিলিমা)
– তুমি আসলে না কিচ্ছু বুঝোনা সবসময় রাগ করো কেনো?(আমি)
– আচ্ছা যাও আর করবো না।(অভিমানী চোখে)
– তোমার জন্য একটা সারপ্রাইজ আছে?(আমি)
– কি সারপ্রাইজ।(ও লাফিয়ে উঠলো যদিও ও জানে কি আনছি)
– আগে ছাদে চলো তারপর।(আমি)
– কিন্তু আমি তো হাটতে পারি না।(নিলিমা)
– দাড়াতে পারো???(আমি)
– হুম।
– তাহলে দাড়াও।(আমি)
নিলিমা উঠে দাড়াতেই কোলে তুলে নিলাম পাগলিটাকে।
ও আমার চোখের দিকে তাকিয়ে আছে একদৃষ্টিতে,
– ওভাবে তাকিয়ো না বাবু আমি ধংসো হয়ে যাবো।(আমি)
– কিভাবে। (নিলিমা)
– ধরো তোমাকে দেখতে দেখতে সিরি থেকে পড়ে গেলাম।(আমি)
– চুপ গাধা চুপচাপ ছাদে চলো।(নিলিমা)
,
তারপর আটচল্লিশ কেজির বস্তা কোলে নিয়ে ছাদে উঠলাম।
তারপর নামিয়ে দিলাম।
– আমার সারপ্রাইজ কই? (নিলিমা)
– দাড়াও।(আমি)
একি আইসক্রিম গলে পানি হয়ে গেছে। ওইটা দেখাতেই?
– এই তোমার সারপ্রাইজ আইসক্রিম এর পানি।(নিলিমা)
– সরি জান গলে গেছে একটু আছে তো চলো এটুকুই খাই।(আমি)
তারপর নিচে থাকা আইসক্রিম টুকু দুজনে খেলাম।
– এবার চলো চাদ দেখি।(নিলিমা)
নিলিমা চাদ দেখতাছে আর আমি ওকে।
চাদের আলোয় বেশ মায়াবি লাগতাছে ওকে।
ইচ্ছাা হচ্ছে আলতো করে গালে একটা চুমু দিয়ে দেই।
– ওই কি দেখছো ওমন করে?(নিলিমা)
– চাদ।(আমি)
– কোথায় চাদ?(নিলিমা)
– এইযে আমার পাশে বসে আছে।(আমি)
– ধুরর তুমি কিযে বলোনা ।
বলেই লজ্জায় আমার বুকে মাথা লুকালো।
থাকুক কিছুক্ষন।
ভালোবাসার রেশ ছড়িয়ে থাকুক আমার বুকে।

Post Reads: 10201 Views