ভালবাসাটা অন্তরের বেপার

ভালবাসার গল্প
Sattar Sarker || 04 April, 2018 ! 4: 08 am

যতবার আমি আমার সুন্দর বউটাকে দেখি আমি আবার তার প্রেমে পড়ে যাই। বিগত ১৪ বছর ধরে, প্রতিটা দিন আমি তার প্রেমে পড়েছি। আমি প্রতিদিন তাকে বলি, কতটা সুন্দর সে। আমি তার সবকিছুর প্রেমে পড়ি। তার কথা বলার ধরন, তার চাহনি, তার হাসি, তার চুল, তার নাক, তার শরীরের ঘ্রাণ,তার হাত…… সবকিছু!! তবে আমি তার পা পছন্দ করি সবচেয়ে বেশী। কিন্তু সে তার পা আমাকে দেখতে দেয় না, ধরতে দেয় না। সে ভাবে তার পা ততটা সুন্দর না যতটা না আমি মনে করি। আমি বোঝাতে পারি না কতটা পছন্দ করি আমি তাকে।

আমি সারাদিন তার দিকে তাকিয়ে থাকি। কিন্তু সে কখনই আমার কথা বিশ্বাস করে না। সে সারা দিন রোদের নীচে কাজ করে আর বলতে থাকে সে আর আগের মত সুন্দর নেই। সে বলে, সে কালো হয়ে যাচ্ছে, সে কুৎসিত হয়ে যাচ্ছে।

এই কথা গুলো শুনলে আমার খুব রাগ হয়। ইচ্ছে করে তাকে বোঝাতে, কতটা সুন্দর সে এবং আমি কতটা ভাগ্যবান তাকে আমার স্ত্রী হিসেবে পেয়ে, আমার সব চেয়ে ভালো বন্ধু হিসেবে পেয়ে, আমার অর্ধাঙ্গিনী হিসেবে পেয়ে।

আমার বাবা মা আমার বন্ধুর মত ছিলো, কিন্তু তাদের হারাবার পর আমার স্ত্রী আমার সব হয়ে ওঠে। আমি কিছু লুকাই না আমার স্ত্রীর কাছ থেকে এবং আমি সব সময় তার মতামত নেই, যেন কোন কাজের সময়ে।

আমার স্ত্রী আমার কাছে সব। সে আমার সাথে ১৪ বছর যাবত আছে। এই ১৪ বছরে আমার কোন বন্ধুর প্রয়োজন পড়েনি।

একবার সে আমাকে ফেলে তার বাবার বাড়ি গিয়েছিলো দুই দিনের জন্য। ঐ দুই দিন আমি এতটাই একা ছিলাম যে শুধু কেঁদেছি। আমি কোন কাজ করতে পারিনি এমনকি আমার কোন কথা বলার মানুষও ছিলো না।

সে যখন বাবার বাড়ি থেকে ফিরে আসলো, আমি তাকে দেখেই আমি কান্না শুরু করেছিলাম। আমি যখনই কাঁদি, যে আমাকে বলে, ‘তুমি একটা বোকা মানুষ। আমি আর কোনদিন কোথাও যাবো না আমার এই বোকা স্বামীটাকে রেখে।’

আমি অনেক শক্ত একটা মানুষ। আমি কখনো কারো জন্য কাঁদি নাই। কিন্তু আমি যখনই একটু সমস্যায় পড়ি অথবা একটু অসুস্থ হয়ে যাই, আমি তার হাত ধরে ঝরঝর করে কেঁদে ফেলি, আর সে এটা নিয়ে মজা করে আমার সাথে। আমি শিশু হয়ে যাই তার সামনে।

আমাদের কোন বাচ্চাকাচ্চা হয়নি এই ১৪ বছরে। আমরা উপরওয়ালার কাছে কোন অভিযোগ করিনা এটা নিয়ে। এবং আমরা সুখী।

আমরা খোদার কাছে কৃতজ্ঞ যে সে আমাদের দুজন দুজনাকে দিয়েছে।

আব্দুল সোবহান এবং রাশেদা বেগম।

গল্প এবং ছবিঃ জিএমবি আকাশ।

একটা সুন্দর গল্প পড়তে ইচ্ছা করতেছিলো। যাতে পবিত্রতা আছে, শুদ্ধতা আছে, সুস্থতা আছে, তৃপ্তি আছে।

এমন কোন গল্প যা মানুষ জাতির উপর বিশ্বাস ফিরিয়ে আনে, ভালোবাসা এখনো বিরাজমান তা প্রমান করে।

তাই নিঃসন্তান এই দম্পতির গল্পটা। একজন বোকা স্বামী আর তার সুন্দরী বউয়ের গল্প। যারা ১৪ বছর একে অপরকে আঁকড়ে ধরে আজও বেঁচে আছে।

Please follow and like us:

Post Reads: 539 Views

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × 2 =