মাসিক কেন হয়?মেয়েদের ❓❓

Womens নারী
Razia Aktar Moni || 11 October, 2019 ! 9: 35 am

মাসিক কেন হয়?মেয়েদের ❓❓

💦💥অনেকে প্রশ্ন করেন, আল্লাহ تعالى কেন মেয়েদের মাসিকের মতো একটা কষ্ট দিলেন? এত রক্ত নষ্ট হয়ে কী লাভ? প্রত্যেক মাসে স্বামীদের ৭-১০ দিন কষ্ট করতে হবে, কী দরকার ছিল এসবের?

💥জরায়ুর ভেতরের দেওয়ালে একটি স্তর থাকে যেখানে ভ্রূণ গিয়ে সংযুক্ত হয়। যখন এই স্তরটি খসে পড়ে, তখন কিছু রক্ত সহ তা বেড়িয়ে যায় —এটাই মাসিক। এই জটিল স্তরটি সুস্থ, সবল ভ্রূণকে গ্রহণ করে, এবং বিকৃত ভ্রূণকে মাসিকের মাধ্যমে বের করে দিয়ে অসুস্থ, বিকৃত বাচ্চা হওয়া থেকে আমাদের রক্ষা করে।[৩৬০] আল্লাহ تعالى এই স্তরে যথেষ্ট ব্যবস্থা করে রেখেছেন, যেন এটি ভ্রূণের স্বাস্থ্য যাচাই করে সিদ্ধান্ত নিতে পারে: সেটাকে রাখবে, নাকি বের করে দেওয়া ভালো হবে।

🧠ovarylayer (1)🧠

🧠জরায়ুর ভেতরের স্তর, যা মাসিকের মাধ্যমে বেড়িয়ে যায়।

🧠অপরিপক্ব, নষ্ট বা মৃত ভ্রূণ, যা জরায়ু গ্রহণ করে না, ভেতরে থেকে গেলে সেটা থেকে ইনফেকশন হয়ে যায়। এছাড়াও সেই ভ্রূণ থেকে ক্ষতিকর হরমোন তৈরি হয়। একারণে জরায়ুকে রক্ষা করার জন্য মাসিকের মাধ্যমে ভেতরটা পরিস্কার করে নারীদের দেহ থেকে ক্ষতিকর হরমোন, উচ্ছিষ্ট বের করে দিয়ে নতুন পরিষ্কার স্তর তৈরি হয়। এই পদ্ধতি নিশ্চিত করে মেয়েরা যেন সুস্থ থাকে, সুস্থ বাচ্চা ধারন করার জন্য জরায়ু সুষ্ঠু থাকে এবং মানবজাতির বংশবৃদ্ধিতে জেনেটিক ত্রুটি বাড়তে না থাকে। মাসিক আছে দেখেই মানবজাতির জেনেটিক ত্রুটি বংশ পরম্পরায় ক্রমাগত বাড়তে বাড়তে মানুষ বিকৃত হয়ে যায়নি।[৩৬১]

🧠এই জটিল স্তরটিতে প্রচুর রক্তনালী থাকে, যা রক্ত প্রবাহিত করে স্তরটিকে ভ্রূণের জন্য উপযুক্ত রাখে। এই স্তরটি মাসের পর মাস রক্ষণাবেক্ষণ করা শরীরের জন্য যথেষ্ট ব্যয়বহুল একটি কাজ। এর জন্য প্রচুর রক্ত এবং পুষ্টি দরকার হয়। চার মাসে মাসিক হওয়ার কারণে দেহ ৫৩ মিলিওন জুলস শক্তি সাশ্রয় করে, যা পুরো ছয় দিনের খাবার থেকে আসা শক্তির সমান। স্বাভাবিক মাসিকের সময় গড়ে যে ৩০-৭০ মিলি রক্ত বেড়িয়ে যায়, তাতে দেহের কিছুই যায় আসে না।[৩৫৯]

🧠একারণে সাধারণত মাসে একবার জরায়ু পুরনো স্তরটি ফেলে দিয়ে নতুন একটি স্তর তৈরি করে, কারণ সেটি করলে দেহের পুষ্টি এবং শক্তি অনেক খরচ কম হয়। এছাড়া পরিষ্কার একটি নতুন স্তরের লাভ তো আছেই। মাঝে মাঝে জরায়ু সিদ্ধান্ত নেয় যে, এই স্তরটি বের করে দেওয়ার দরকার নেই, তারচেয়ে শরীরে শুষে নেওয়াটাই ভালো হবে। তখন আর কিছু বের হয় না, স্তরটি তখন শরীরে শুষে যায়। সুতরাং হঠাৎ এক-দুই মাস মাসিক না হলে চিন্তার কারণ নেই। ঠিকমতো খাওয়া দাওয়া করে দেহকে স্বাভাবিকভাবে তার কাজ করতে সাহায্য করা উচিত। মাসিক জনিত সমস্যার অন্যতম কারণ হচ্ছে দেহকে ঠিকমতো পুষ্টি না দিয়ে তার স্বাভাবিক কাজে বাঁধা দেওয়া। মিডিয়ার ব্যাপক অপপ্রচারনায় নারীদের যে ধরনের চিকন দেহের গঠন ধরে রাখার জন্য উৎসাহ দেওয়া হয়, সেটা সম্পূর্ণ প্রকৃতি বিরুদ্ধ কাজ। নারী দেহ এই অত্যাচার সহ্য করার জন্য তৈরি করা হয়নি। এজন্যই আজকাল নারীদের এত ব্যাপক হারে মাসিক জনিত সমস্যা দেখা যায়।[৩৫৯] সেই সমস্যা কমাতে গিয়ে অনেকে পিল খায়। তারপর সারা জীবন পিল জনিত অনেকগুলো সমস্যায় ভোগে।

🧠মাসিক শুধু মানুষেরই হয় না, বানর, শিম্পাঞ্জি, গরিলা, বাদুর সহ আরও কিছু প্রাণীর মাসিক হয়। যে সব প্রাণী লম্বা সময় গর্ভবতী থেকে বাচ্চা জন্ম দেয়, এবং সারা জীবনে অল্প কয়েকটি বাচ্চা জন্ম দেয়, সেই সব প্রাণীর মাসিক হতে দেখা যায়। কারণ মাসিক হচ্ছে সুস্থ সবল বাচ্চা শেষ পর্যন্ত সুন্দরভাবে জন্ম দেওয়ার সম্ভাবনা যতটুকু সম্ভব বাড়ানোর জন্য দেহের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। যদি মাসিক না হতো, তাহলে বিকৃত বাচ্চা এবং মৃত বাচ্চা হতো অনেক বেশি।[৩৬২]

😰😰🕴বলে দাও, এটা কষ্ট🏦

🧠প্রচলিত অনুবাদ হলো, “বলে দাও, এটা অশুচি।” কিন্তু এখানে نَجَس নাজাস অর্থাৎ অপবিত্রতা, অশুচি, নোংরা ব্যবহার করা হয়নি। বরং বলা হয়েছে, “বলে দাও, এটা أَذى”أَذًى (আযা) এর কু’রআনে ব্যবহার করা অর্থগুলো হচ্ছে অসুস্থতা, ক্ষত, কষ্টকর অবস্থা, অসুবিধা ইত্যাদি।[৫] অনেকে এর ব্যখ্যা করেছেন অপবিত্রতা।[১২] কিন্তু কু’রআনে এই শব্দটি ব্যবহার হয়েছে পুরুষদের মাথার ত্বকের ক্ষত বোঝাতে, যা তাদেরকে হাজ্জের সময় মাথা কামাতে অসুবিধা তৈরি করে [২:১৯৬]। মুসলিমদের উপর আহলে কিতাব এবং মুশরিকদের কষ্টকর আচরণ বোঝাতে [৩:১৮৬]। মুসলিমদের কষ্ট দেওয়া, ছোট খাটো ক্ষতি করা বোঝাতে [৩:১১১]। ভারি বৃষ্টির কারণে যে কষ্টকর পরিস্থিতি তৈরি হয়, সেটা বোঝাতে [৪:১০২]। এবং মাসিক সংক্রান্ত এই আয়াতে। কু’রআনে এই শব্দের অর্থগুলো লক্ষ করলে দেখা যায়, أَذى শব্দটি ক্ষতিকর কিছু, কষ্টকর কিছু বোঝাতেই সব জায়গায় ব্যবহার করা হয়েছে।

🧠এছাড়াও আরেকটি লক্ষ করার ব্যপার হলো, এই আয়াতে হওয়ার কথা مُؤْذٍ মু’যিন, যার অর্থ কষ্টকর কিছু। কিন্তু আমরা أَذى এর মাসদার রূপ দেখতে পাই, যার অর্থ হচ্ছে মাসিক হচ্ছে ‘কষ্ট’ যাকে বলে। কষ্ট কী জিনিস সেটা মাসিক হলে বুঝবে।[১] আল্লাহ تعالى পুরুষদেরকে জানিয়ে দিচ্ছেন যে, তাঁর দৃষ্টিতেও এটা ‘ভীষণ কষ্ট’। তাই পুরুষরা যেন একে হাল্কাভাবে না নেয়।

🧠একই সাথে নারীদেরও এটা বুঝতে হবে যে, মাসিক শুধু নারীদের জন্য কষ্ট না, পুরুষদের জন্য একটা যথেষ্ট মানসিক কষ্ট। এই সময়টাতে পুরুষদের বিশেষভাবে মানিয়ে চলতে হয়, পুরুষদেরকে যথেষ্ট সংযম পালন করতে হয়। এছাড়া পুরুষদের শারীরিক কষ্ট তো আছেই। মনে রাখতে হবে, নারী-পুরুষ দুইজনের এই কষ্ট হচ্ছে তাদের ভবিষ্যৎ বংশধরদের নিরাপত্তার জন্য একটা বিনিয়োগ। প্রত্যেক বাবা-মাই চাইবেন তাদের বাচ্চারা যেন সুস্থ সবল হয়, ত্রুটি বিহীন হয়। এর জন্য তারা যে কোনো ত্যাগ স্বীকার করতে রাজি থাকবেন। মাসিক হচ্ছে সেই ত্যাগের একটি অংশ।
❣💚আলহামদুলিল্লাহ আল্লাহ কত মহান💚❣

Post Reads: 593 Views