মাটির প্রজার দেশে / Kingdom of Clay Subjects /রিভিউ

মিডিয়া সংবাদ
Imran Khan || 31 March, 2018 ! 9: 12 am

“Kingdom of Clay Subjects/মাটির প্রজার দেশে” দেখেছি প্রায় ৪/৫ দিন হয়ে গেলো। দেখার পরে এখন রিভিউ লিখছি, কারন সময় পাচ্ছিলাম না। এটা এমন এক মুভি যেটা নিয়ে অনুভুতি লিখতে গেলেও সময় নিয়ে বসতে হবে। ২/৪ লাইনে লিখলে হবে না। ২/৪ লাইনের ফ্রেমে আঁটে না আসলে।
মুভিটা শুরুতেই নিয়ে যায় সেই অবাধ্য শৈশবে। সেই সুন্দর গ্রাম, সেই গাছে চড়া, আরও কতো কি! অদ্ভুত সুন্দর সিনেমাটোগ্রাফি দেখে মনে হবে গল্প না হলেওতো চলে, চোখ জোড়া না হয় সুন্দরই দেখুক! এসব দেখতে দেখতেই একসময় গল্পে ঢুকে যাবেন। কাহিনিটা প্রেডিক্ট করতে পারবেন, কিন্তু মিলবে না। তারপর আউট অব দ্যা বক্সে গিয়ে পরিচালকের সাথে তাল মিলিয়ে প্রেডিক্ট করবেন, তাও মিলবে না। এই ধরেন আমার যেটা হলো হুজুর জামালকে এতো কেয়ার করে কেন? জামালের মা যে বাসায় কাজ করে ওই বাসায় কোন কাজ সেরে বের হওয়ার সময় জামালের মায়ের দিকে এভাবে কেন তাকালো হুজুর? টাকাও ধার নেয় হুজুরের কাছ থেকে। আমার ভাবনার সাথে দুইয়ে দুইয়ে চার মিলিয়ে একদিন রাতে জামালের মা জামালকে খুঁজতে হুজুরের বাড়িতে হাজির। তবে কি?
এই হুজুর অন্য রকম, সে স্পেশ শিপ চেনে। শিক্ষাদিক্ষার কথা বলে। কারো অপরাধ জাস্টিফিকেশনের আগে কোন সিচুয়েশনে অপরাধ করেছে এটা জানতে চায়। এই হুজুর আলাদা। কতোটা আলাদা? এটার জন্যে অপেক্ষা করতে হবে একদম মুভির লাস্ট শট পর্যন্ত।
এই মুভিতে পরিচালক অন্য ভাষায় কথা বলেছেন। জামাল স্কুলে ভর্তি হতে যায় একাই, সেখানে জাস্ট কিছুক্ষনের জন্যে একজন শিক্ষক ওর সাথে কথা বলে, নিতাই স্যার সম্ভবত(নাম ভুল হতে পারে)। এই দুইমিনিটের চরিত্রটাও আপনাকে মুগ্ধতা দিয়ে যাবে। পুরো মুভিতে জামালের মা জামালকে যেভাবে জড়িয়ে ধরেছেন তা দেখে মনে হবে এটাতো আপনারই মা আপনাকে কোলে নিয়ে বসে আছেন। এতো ভালোবাসার পরও জামাল সেই খেলার সাথী মেয়েটার কাছে গিয়ে হাজির, তার মা নাকি তাকে ভালোইবাসেনা। ভালোবাসলেতো স্কুলে যেতেই দিতো! কারন জামাল আস্থা পায় বন্ধুর কাছে, যেমনটা আপনি আমিও পেয়েছি ছোটবেলায়। স্বাভাবিক ভাবেই বন্ধুর কথায় জামাল ফিরেও আসে। জামালের মা জামালকে স্কুলে যেতে দেয়নি। এক পর্যায়ে বলে বসে “এতো ঝড় সামলে আমরা এতোদুর আসছি না?” এই ডায়লগটা শুনে মনে হবে কিসের ঝড়? ফ্ল্যাশব্যাক নাই কেন? কল্পনায় একটু না দেখালে কিভাবে বুঝবো? বুঝবেন, কারন ডিরেক্টরটা আলাদা। তাইতো কোন ফ্ল্যাশব্যাক, কাহিনি বিবরন ছাড়াই অতীত দেখে ফেলবেন। সেই অতীতের ভয়ংকর ইমপ্যাক্ট দেখবেন বর্তমানে। আর ভবিষ্যৎ? এটা দেখতে চাইলে সিনেপ্লেক্সে যেতে হবে।
ঢাকায় স্টার সিনেপ্লেক্স এবং যমুনা ব্লকবাস্টারে চলছে।

Collected fb: Muntasir Mahmud

Please follow and like us:

Post Reads: 234 Views

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

sixteen − fourteen =